কোনো মতবাদ খণ্ডিত হলে তার প্রতি কোনো অসম্মান জানানো হয় না

  • 0
জ্ঞানের ঐতিহ্য প্রাণবন্ত হয় মুক্তচিন্তায়। কোনো মতবাদ খণ্ডিত হলে তার প্রতি কোনো অসম্মান জানানো হয় না। বরং তাকে যে তর্কের বিষয় করা হয়, এতে তার গুরুত্বই বাড়ে। অমর্ত্য সেনের The Argumentative Indian বই পড়লেই এটা বোঝা যায়। বইটি সেই কবে পড়বার পড়ে ভুলেই গিয়েছিলাম, অনেকদিন পরে বন্ধু জয়িতা এর কাছ থেকে একটা বাংলা অনুদিত পিডিএফ কপি পেয়ে আবার মনটা নাড়াচাড়া দিয়ে উঠলো। আমি বই পড়তে পছন্দ করি বিধায় অনেক কষ্ট করে জয়িতা আমাকে এই বইটির বাংলা পিডিএফ করে দিয়েছে, জানি এর পেছনে কত রাত আর দিনের শ্রম সে ব্যয় করেছে। তাই লেখাটির ডালপালা আরো বিস্তারিত করার আগে তাকে স্যালুট এমন এক অনবদ্য উপহারের জন্য।
অমর্ত্য সেনের যেকোন বই যখনই পড়ি সব সময় অনুপ্রাণিত হই, তার সবধরনের লেখাতেই চিন্তার প্রচুর খোরাক থাকে। যদিও অনেকে মনে করছেন এই বইতে অমর্ত্য সেন প্রকৃতপক্ষে হিন্দুত্ববাদের বশ্যতা স্বীকার করেই বইটি লিখেছেন। ইসলাম সম্পর্কে তার মতবাদ পুরনো নয়, এই ধরনের কথা আগে পরে অনেকই বলেছেন, এখনো বলছেন। পাঠক বইটির রেফারেন্স হিসেবে "ধর্মনিরপেক্ষতা সম্পর্কিত অসন্তোষ" অধ্যায়টি পড়ে দেখতে পারেন। যাই হোক তর্ক তোলার জন্য তর্কের উপরে আমার এই লেখা নয়। অস্বীকার করার উপায় নেই যে তর্ক বিতর্কেই আমাদের জ্ঞ্যানের পরিধিতে সবচেয়ে সহায়ক ভুমিকা
রেখে থাকে। আমি বইয়ের কিছু কিছু অধ্যায় থেকে কিছু কিছু অংশ তুলে ধরছি।


হঠাৎ করে বাংলাদেশে ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে একধরনের সরব আলোচনা শুরু হয়েছে, বইটি পড়তে গিয়ে নিচের অংশটিকে সংগত মনে হলো।

ভিন্নমত প্রকাশে তিনি আরো আলোকপাত করেছেন;

বইটি এখনো পড়ে না থাকলে পড়ে ফেলুন। আমি নিশ্চিত চিন্তার অনেক খোরাক পাবেন এই বইটিতে।